মুদি দোকানীর ধর্ষণে ১৩ বছরের কিশোরী অন্তঃস্বত্তা, মুদি দোকানী আটক

সংবাদ সারাক্ষণ
সম্পাদনাঃ ২৭ মার্চ ২০১৭ - ০৫:০০:৪০ এএম

ফেনীতে এক কিশোরীকে (১৩) ধর্ষণের অভিযোগে মুদি দোকানীকে আটক করেছে পুলিশ। তার নাম আবুল কাশেম। ওই অন্তঃস্বত্তা কিশোরী এখন ফেনী সদর হাসপাতালের নারী ও শিশু ওয়ার্ডে ভর্তি রয়েছে।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানায়, ফেনী সদরের ধর্মপুর ইউনিয়নের জেরকাছাড়ের এক ব্যক্তি বিভিন্ন স্থান থেকে স্ক্র্যাপ সংগ্রহ করে স্ক্র্যাপ দোকানে বিক্রি করতেন। তিন বছর আগে থেকে তিনি পরিবার নিয়ে পরশুরামের কোলাপাড়া এলাকায় ডাক বাংলো চৌমুড়ির কাছে একটি ভাড়া ঘরে বাস করেন। ঘরে স্ত্রী ছাড়াও ১৩ বছরের মেয়ে রয়েছে। মেয়েটি তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করলেও অভাবের সংসারে বেশিদূর পড়া হয়নি। কাছেই আবুল কাশেমের মুদি দোকানে মাঝে মাঝে তাকে নানা সদাই আনতে পাঠানো হত। এই সুযোগে তিন মাস আগে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে কাশেম। এতে সে অন্তঃস্বত্তা হয়ে পড়ে। আজ রবিবার সে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিকেলে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মেয়েটির বাবা বলেন, ওই দোকানে তাকে মাঝে মাঝে সদাই আনতে পাঠাতাম। কিন্তু কখন যে ওই দুষ্টু লোকটি এমন ঘটনা ঘটিয়েছে তা বুঝতে পারিনি। আজ সকালে মেয়েটি অসুস্থ হয়ে পড়লে বিকেলে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে থানায় লিখিত অভিযোগের প্রস্তুতি চলছে।

ফেনী সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক (ইএমও) ডা. মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ রবিবার রাতে কে জানান, ওই কিশোরীকে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা অভিযোগ পেয়েছি, তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। বিষয়টি পরীক্ষার পর স্পষ্টভাবে জানা যাবে। এ ব্যাপারে আগামিকাল সোমবার আনুষ্ঠানিকভাবে তথ্য দেয়া হবে বলে তিনি জানান।

পরশুরাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম চৌধুরি আজ রাত ৮টার দিকে জানান, পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে মুদি দোকানী কাশেমকে পরশুরাম থানা পুলিশের একটি দল আটক করেছে। তবে এখনো তাকে থানায় আনা হয়নি। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে গণমাধ্যমকে তথ্য জানানো হবে বলে তিনি জানান।

সর্বশেষ